ঢাকা, সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ , , ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪০

আত্মহত্যার আগে তাজ্জির ‘স্টারমামস

নিউজ ডেস্ক,ঢাকা । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৯ ৮:৩৪ সকাল

লাক্স-চ্যানেল আই সুপার স্টার প্রতিযোগিতায় ২০০৮ সালে প্রথম রানারআপ হয়েছিলেন সৈয়দা তাজ্জি। পরে নাটক, টেলিছবি ও বিজ্ঞাপনে অভিনয় করেছেন।

তাজ্জি অস্ট্রেলিয়ায় বসবাস করছেন। সেখানে মার্কেটিংয়ের ওপর পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন করেছেন। বর্তমানে সেখানে একটি প্রতিষ্ঠানে মার্কেটিং কনসালট্যান্ট হিসেবে কাজ করছেন।

বিদেশে থাকলেও এই তারকা দেশের নারীদের নিয়ে ভাবেন, কাজ করতে চান। এজন্য তিনি একটি উদ্যোগ নিয়েছেন। নারীদের জন্য গড়ে তুলেছেনর প্লাটফর্ম।

জীবনের চরম বাস্তবতায় কূল-কিনারা না পেয়ে অনেক সময় নারীরা আত্মহত্যা করেন। আত্মহত্যা করতে চান এমন নারীদের সহায়তা করতে তাজ্জি ‘স্টারমামস’ নামের প্ল্যাটফর্ম চালু করেছেন। এটি নারীদের মানসিক সমস্যা নিয়ে কাজ করছে।

সৈয়দা তাজ্জি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আত্মহত্যা করার আগে একটু ভাবতে হবে। চিন্তা করতে হবে। কারণ খুঁজতে হবে। জীবনে সাফল্য বা ব্যর্থতা আসবেই। কিন্তু এমন কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে না কোনোভাবেই।’

তিনি বলেন, ‘আমার এই প্ল্যাটফর্মটি বাংলাদেশের মেয়েদের সাপোর্ট দেওয়ার জন্য তৈরি করা হয়েছে। ইদানীং আমাদের সমাজে কিছু নারীর মধ্যে নানা প্রতিবন্ধকতা আর মানসিক শক্তিরও অভাব দেখতে পাই। দেখা গেছে, যেকোনো একটি ঘটনা ঘটলেই তাঁরা নিজেদের প্রতি বিশ্বাস হারিয়ে ফেলেন, যা একজন মানুষকে অনেকটা পিছিয়ে দেয়। শুধু তা-ই নয়, আমাদের দেশের নারীদের মধ্যে হেরে যাওয়ার প্রবণতা দেখা যায়, যার ফলে নারীরা আত্মহত্যার মতো ঘটনায় অহরহ ঝুঁকে পড়ছেন। তাই আমার এই স্টারমামস সেসব নারীদের জন্য, যাঁরা প্রপার কাউন্সেলিং এবং পজিটিভ দিকনির্দেশনা খুঁজছেন, কিন্তু পাচ্ছেন না। একটা অঘটন কিংবা অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটনার পর পুরো সমাজ কিংবা পরিবার যখন মেয়েটির দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়, তখনই তাঁর পাশে থাকবে স্টারমামস।’

অস্ট্রেলিয়ার ‘হটকিউবেটার’ নামে প্রতিষ্ঠানটি স্টারমামসের পৃষ্ঠপোষকতা করছে। বিস্তারিত জানার জন্য যোগাযোগ করতে পারবেন www.thestarmums.com এবং youtube/Starmums ঠিকানায়।