ঢাকা, শনিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৭ , , ৩০ মুহররম ১৪৩৯

আদালতের ঘটনার সঙ্গে মীর হেলালের অনুসারীরা দায়ী

নিউজ ডেস্ক । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: আগস্ট ৩০, ২০১৭ ১:৫২ দুপুর

চট্টগ্রাম: বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও উত্তর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক লায়ন আসলাম চৌধুরীর সাথে সেলফি তোলা নিয়ে হাতাহাতি ও হামলা শীর্ষক বিভিন্ন পত্রিকায় যে সংবাদ প্রকাশিত তা সঠিক নয় বলে দাবি করেছে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আনিস আক্তার টিটু। বুধবার (৩০ আগস্ট) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ ঘটনার ব্যাখা দেন টিটু।

২৮ আগস্টের ওই ঘটনায় আনিস আক্তার টিটু, মো.শাহেদ ও মো.আরিফ গুরুতর আহত হয়। তিনজনই চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

বিবৃতিতে আনিস আক্তার টিটু বলেন, গত এক বছর ধরে ষড়যন্ত্রমূলক বিভিন্ন মামলায় আমাদের নেতা আসলাম চৌধুরীকে আদালতে নিয়ে আসছে। এরই অংশ হিসেবে আসলাম চৌধুরীকে যেদিন আদালতে হাজির করা হয় সেদিন নেতাকর্মীরা তার সাথে দেখা করেন। এক নজর দূর থেকে দেখেন। প্রতিদিনের মতো ২৮ আসস্ট চট্টগ্রাম জেলার একটি মামলায় আসলাম চৌধুরীকে আদালতে হাজির করা হয়। হাজিরা শেষে তাকে কারাগারে নিয়ে যাওয়ার সময় মীর নাছির ও মীর হেলালের শ্লোগান দিয়ে উত্তর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি জাহেদুল আফসার জুয়েল ও সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম জনির নেতৃত্বে আমাদের নেতাকর্মীদের উপর হামলা করে। তারা প্রায় তিনশ জনেরও অধিক বিভিন্ন দেশি অস্ত্রে সজ্জ্বিত হয়ে হামলা করে।

সেখানে পাথরঘাটা এলাকার ছাত্রলীগ নেতাকর্মী ও পলিটেকনিক এলাকার সন্ত্রাসী সাহেদের লোকজনও ছিলো। তারা এলাপাথাড়িভাবে ছুড়ি মেরে মীর নাছির ও মীর হেলালের শ্লোগান দিয়ে সেখান থেকে চলে যায়। এথেকে বুঝা যায় ঘটনাটি ছিলো পূর্বপরিকল্পিত। যার ভিিিডও ফুটেজ রয়েছে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের কাছে। কিন্তু গণমাধ্যমে খবর এসেছে সেলফি তোলার জন্য হাতাহাতি , মারামারি।

এ ঘটনা তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আদালতের পক্ষ থেকে তদন্ত কমিটি গঠন এবং ঘটনার সাথে জড়িত এবং ইন্দনদাতাদের আইনের আওতায় আনার আহ্বান জানান এ ছাত্রনেতা।