ঢাকা, শুক্রবার, ১৭ আগস্ট ২০১৮ , , ৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৩৯

কন্ঠ মাধুর্য্যে এগিয়ে যাচ্ছেন শিল্পী আয়েশা জেবীন দিপা

বিনোদন ডেস্ক । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: আগস্ট ৬, ২০১৮ ৪:২৬ দুপুর

সঙ্গীত জগতে এ সময়ে দেশে কণ্ঠ মাধুর্য্যে যারা শ্রোতাদের মন জয় করে নিয়েছেন তাদের মধ্যে অনায়াসে এগিয়ে থাকা নামটি হচ্ছে আয়েশা জেবীন দিপা। ঢাকার পাশের শহর গাজীপুরের মিস্টি মেয়ে দীপা শিশুবেলায় নাচের প্রতিই ঝোঁক ছিল বেশি। কিন্তু সফলতা পেয়েছেন গানে।

সংগীত এর প্রতিটি বিভাগে সমান তালে এগিয়ে যাচ্ছেন দিপা। ২০০৯ সালে জাতীয় শিশু কিশোর প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়ে স্বর্ণ পদক অর্জন করেন। ২০১৪ সালে ম্যাজিক বাউলিয়ানা প্রতিযোগিতায় চতুর্থ হন দিপা। জনপ্রিয় অভিনেতা ফজলুল রহমান বাবুর সাথে দ্বৈতকণ্ঠে “কি জ্বালা দিয়া গেলা মোরে” গানটি গেয়ে শ্রোতাদের কাছে ব্যাপক পরিচিতি পান । এর পর বেশ কিছু মিক্স এলবামে কন্ঠ দেন এই শিল্পী। ব্যান্ড চিরকুটের কম্পোজিশনে ” তোমায় হৃদ মাজারে রাখিবো ” গানটি গাওয়ার সৌভাগ্য হয় তার।এই গানটি গেয়ে তাকে আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি।

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি নৃত্য বিভাগের ছাত্রী থেকে কখন যে সংগীতের উপর ভালোবাসা জন্মেছে তা তিনি নিজেও জানেন না। নৃত্য প্রতিযোগিতায় অর্জন করেছেন অনেক সার্টিফিকেট।

কিন্ত নৃত্যর পাশাপাশি সঙ্গীত বেশ মন টানতেন তার। যখন তার বয়স ৭ বছর তখনই থেকে নাচ শিখছেন। তারপরই সংগীত জগতের সাথে যুক্ত হন দিপা। সংগীত জগতে এসে অল্প সময়ে ভালো একটা জায়গা তৈরি করে নেন এই শিল্পী।

বর্তমানে তিনি নিজের এলবাম নিয়ে ব্যস্ত আছেন। তবে এলবাম বের হওয়ার আগেই চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক সিঙ্গারের খাতায় নাম লিখিয়েছেন দিপা।

এদিকে আগামী ঈদের জন্য বেশ কিছু গান করেছেন দিপা। কবির বকুল এর লেখা ও সুরে “ঘুমাইলেও দেখি” শিরোনামের গান গেয়েছেন । এছাড়াও দ্যন্তন-ন লিটনের কথা ও নজরুল বাবুর সুরে কন্ঠ দিয়েছে “মন ভাঙার কারিগর” গানটিতে।

এছাড়াও বিভিন্ন চ্যানেলে নিয়মিত লাইভ প্রোগ্রাম, মিক্সড এলবামে রেকর্ডিং, সিনেমায় প্লে-ব্যাক ও স্টেজ শো নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন
এই প্রজন্মের প্রতিভাবান কণ্ঠশিল্পী আয়েশা জেবীন দিপা।

গান ছাড়াও দীপা আরেকটি বড় গুণ হচ্ছে ভাল রান্না করেন তিনি। স্বভাবত গানের জন্য লাইফ প্রোগ্রাম, প্লেব্যাক রেকর্ডিং স্টেজ শোতে ব্যস্ত থাকা একজন মানুষ নিয়মিতই নিজে রান্না করেন, এ যেনো কল্পনা করা যায় না।

এব্যাপারে সিএনএন বাংলাদেশকে শিল্পী দিপা বলেন, ‘আমি বিয়ের পর থেকে অর্থাৎ দুই বছর ধরে নিজেই সংসারে রান্না করি। এতে আমার কোন সমস্যা হয় না। আমার স্বামী আমার হাতের রান্নাই পছন্দ করেন।’ অর্থাৎ বাঙালিদের একটা প্রবাদ আছে ‘যে রাঁধতে জানেন-সে কোপাও বাধেন’। ঠিক তেমনি শিল্পী আয়েশা জেবীন দিপা।