ঢাকা, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ , , ৫ জমাদিউস সানি ১৪৩৯

কাতালানের স্বাধীনতা ঘোষণা স্থগিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: অক্টোবর ১১, ২০১৭ ৬:০৮ সকাল

স্পেনের কাছে থেকে স্বাধীন হওয়ার ঘোষণা স্থগিত করল দেশটির স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল কাতালান।

গতকার মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ১১টার দিকে কাতালানের আঞ্চলিক পার্লামেন্টে ভাষণ প্রেসিডেন্ট কার্লোস পুইজদেমন বলেন, অঞ্চলটি স্বাধীন হওয়ার অধিকার অর্জন করেছে।

তবে আলোচনার মাধ্যমে সেটি নিষ্পত্তি করার জন্য তিনি আরও কিছুদিন সময় দিতে চান। কাতালানের স্বাধীনতা ঘোষণা না করার জন্য স্পেন সরকার ও ইউরোপের কয়েকটি দেশের প্রচণ্ড চাপ ছিল।

স্পেন থেকে স্বাধীনতা ঘোষণার প্রশ্নে গত ১ অক্টোবর একটি গণভোটের আয়োজন করে কাতালান সরকার। প্রবল পুলিশি বাধার মধ্যেও ৯০ ভাগ কাতালোনিয়ান স্বাধীনতার পক্ষে ভোট দেন।

তবে স্পেন সরকার বলেছে, কাতালানের স্বাধীনতা ঘোষণা অবৈধ। দেশটির সাংবিধানিক আদালতও গণভোটকে অবৈধ ঘোষণা করেছে। তবে স্বাধীনতা ঘোষণায় অনড় ছিল কাতালান সরকার।

ভাষণে পুইজদেমন বলেন, ‘গত ১ অক্টোবরের গণভোটের ফলাফলে কাতালোনিয়া একটি স্বাধীন দেশ হওয়ার অধিকার অর্জন করেছে… স্বাধীন প্রজাতন্ত্র হওয়ার জন্য কাতালোনিয়ার জনগণের ম্যান্ডেটকে আমি সমর্থন করি।’

তিনি আরো বলেন, আলোচনার মাধ্যমে সেটি নিষ্পত্তি করার জন্য কিছুটা সময় দেয়া দরকার। এজন্য সংসদের স্বাধীনতার ঘোষণা স্থগিত করা উচিত। এর আগে শেষ মুহূর্তের আন্তর্জাতিক মধ্যস্থতার জন্য সংসদের অধিবেশন ১ ঘণ্টা স্থগিত রাখা হয়।

পুইজদেমন বলেন, কাতালানকে আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে এবং স্পেন সরকারকে মাত্রাতিরিক্ত কর দিচ্ছে কাতালানবাসী।

প্রসঙ্গত স্বাধীনতা ঘোষণার আগে বার্সেলোনায় সংসদের বাইরে মঙ্গলবার অবস্থান নেয় কেন্দ্রীয় পুলিশ বাহিনী। জনগণকে সংসদের কাছে ভিড়তেও দেয়া হয়নি। তবে ওই এলাকায় স্বাধীনতার পক্ষে বিশাল সমাবেশ হয়। তবে লক্ষণীয় যে স্বাধীনতার ঘোষণার মতো একটি ঐতিহাসিক ঘটনার সময়ও স্পেন ও কাতালান সরকার ছিল যথেষ্ট সংযত।

এর আগে, স্পেনের প্রধানমন্ত্রী বলেন, কাতালান স্বাধীনতা ঘোষণা করলে সংবিধানের ১৫৫ অনুচ্ছেদ জারি করে সেখানকার স্বায়ত্তশাসন বাতিল করে কেন্দ্রীয় সরকারের শাসন জারি করা হবে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং সংস্থাটির বেশ কয়েকটি দেশ কাতালানের স্বাধীনতার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছে। তারা আলোচনার মাধ্যমে সংকটের সমাধান করতে বলেছে।

স্পেনের বিরোধী দল সোশালিস্ট পার্টির নেতারাও কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। দলটির নেতা পেদ্রো সানচেজ জানান, পরিস্থিতি নিয়ে গভীরভাবে চিন্তিত তিনি।

স্বাধীনতার পক্ষে-বিপক্ষে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে বার্সেলোনায় বিশাল বিশাল সমাবেশ হয়েছে। স্বাধীনতা ঘোষণা করলে সংবিধানের ১৫৫ অনুচ্ছেদ জারি করে কাতালোনিয়ার স্বায়ত্তশাসনে হস্তক্ষেপ করারও হুমকি দিয়েছে স্পেন।