ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ , , ২ রবিউস সানি ১৪৪০

ক্রিকেটার নাঈমের পিতার আজীবন লালিত স্বপ্ন

আলীউর রহমান । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: নভেম্বর ২৪, ২০১৮ ২:০৭ দুপুর

ফেসবুক ওয়াল থেকে :: মাহাবুব ভাইয়ের সাথে প্রথম আন্তরিকতা গড়ে উঠে ২০০৪ সালে। ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে ঘুরে ঘুরে চসিক নির্বাচনে কমিশনার প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছিলাম। একদিন বিকালে মাহাবুবুল আলমের সাক্ষাৎকার নিতে বহদ্দার মসজিদের সামনে গেলাম। প্রার্থী একটি আধভাঙা ডেকোরেশনের দোকানে বসে একটি বড় পিতলের ডেক্সি বিক্রির দরদাম করছিল। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে করতে মনে মনে বললাম নির্বাচনে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ হবে তিনি নির্বাচন করবেন ডেক্সি বিক্রি করে।

সাক্ষাতকারেও তিনি তাই বললেন। টাকা পয়সা নাই। জনগনের অনুরোধে নির্বাচন করছি। ডেকোরশনের আয় দিয়ে কোন রকম পরিবার চলে। আজকে পর্যন্ত তিনটা ডেক্সি বিক্রি করে কর্মীদের নিয়ে এলাকায় গণসংযোগ করছি। সারাজীবন খেলা নিয়ে পড়েছিলাম। টাকা পয়সা কামানোর চিন্তাই করি নাই। পুঁজিহীন মাহাবুব ভাই দুইবার চসিক কাউন্সিলর হয়েছেন জনগনের ভালবাসায়। 

সর্বশেষ তার এলাকার একটি শালিস বৈঠকে মাহাবুব ভাইয়ের বাড়িতে গিয়েছিলাম ২০১৩ সালে। মাহাবুব ভাই তখনও পৈতৃক ভিটায় পরিত্যক্ত ঘরের মতো ঘরে বসবাস করতেন। আমি যেতেই ভাবীর হাতে বানানো নাস্তা দিলেন। তার বড় ছেলেকে ডেকে পরিচয় করে দিলেন। মাহাবুব ভাইয়ের চেয়েও লম্বা। বললেন এখন প্রথম বিভাগে খেলছে। ড্রইং রুমে আমাদের পাশে নাঈমুল হাসানকে পরিচয় করিয়ে দিয়ে বলেছিলেন বড় ছেলে খেলা আর বাসা ছাড়া কোথাও যায়না। কিন্তু নাঈম দুষ্টুর শিরমনি। খেলা খেলা করে সারাদিন দৌড়ে। বাবার মুখে বদনামি শুনে লজ্জায় লাল কিশোর নাঈম। পাঁচ বছর পর বড় ভাই নয় দুষ্ট নাঈম বাবার আজীবন লালিত স্বপ্ন পূরণ করলো। ৮০ দশকের কৃতি ফুটবলার। পরবর্তীতে দীর্ঘদিন ব্রাদাস ইউনিয়নের সেক্রেটারীর দায়িত্ব পালন করে চলেছেন।


টেস্ট ক্রিকেটে সর্ব কনিষ্ঠ অভিষেক ক্রিকেটার হিসাবে ৫ উইকেট নেয়ার কৃতিত্ব এখন নাঈম হাসানের। বাংলাদেশ টেস্ট ক্রিকেটের ৯৩তম ক্রিকেটার হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্টে অভিষেক। আর অভিষেকেই সবাইকে চমকে দিয়ে নাঈম হাসান নিলেন পাঁচ উইকেট। হয়ে গেলো বিশ্ব রেকর্ডও। তা বয়স মাত্র ১৭ বছর ৩৫৬ দিন। বাংলাদেশ জাতীয় দলে তামিমের সাথে চট্টগ্রামের প্রতিনিধি এখন নাঈম। পিতার স্বপ্ন পূরণ করে নাইম এখন বাংলাদেশের টেস্ট দলে। দেশের ৯৩ তম ক্রিকেটার হিসেবে টেস্ট দলে জায়গা করে নিলেন নাঈম। চট্টগ্রামের এই তরুণের প্রতি চোখ ছিল নির্বাচকদের সেই অনূর্ধ্ব-১৭ বয়সী ক্রিকেটে যখন থেকে খেলছিল তখন থেকেই। এরপর অনূর্ধ্ব-১৯, বাংলাদেশ ‘এ’ দল এবং এইচপি দলের হয়ে খেলে নিজেকে পরিপক্ক করেছেন নাঈম।


প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে দারুণ পাফরম্যান্সই নাঈমের জন্য জাতীয় দলের পথ সুগম করে দেয়। আর সেই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে চলেছে সাদা পোশাকের বাংলাদেশ দলেও। ক্যারিয়ারের প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচে একে একে তুলে নিয়েছেন সুনীল অ্যামব্রিস, রোস্টন চেজ, দেবেন্দ্র বিশু, কেমার রোচ ও জোমেল ওয়ারিকানকে।

সবচেয়ে কম বয়সে অভিষেক ম্যাচে পাঁচ উইকেট নেওয়ার রেকর্ডটিও এখন নাঈমের নামের পাশে। ১৭ বছর ১১ মাস ২০ দিনে পাঁচ উইকেটের এই রেকর্ড করেন তিনি। তার আগে প্যাট কামিন্স- ১৮ বছর ৬ মাস ৯ দিনে, শহীদ আফ্রিদি – ১৮ বছর ৭ মাস ২১ দিনে, শহীদ নাজির – ১৮ বছর ১০ মাস ১৩ দিনে ও মেহেদি হাসান মিরাজ – ১৮ বছর ১১ মাস ২৬ দিনে এই কীর্তি গড়েন।
বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের মধ্যে অষ্টম ক্রিকেটার হিসেবে অভিষেকেই পাঁচ উইকেট পাওয়ার কীর্তি দেখালেন এই তরুণ স্পিনার। তার আগে নাইমুর রহমান (২০০০), মোহাম্মদ মঞ্জুরুল ইসলাম (২০০১), মাহমুদউল্লাহ (২০০৯), ইলিয়াস সানি (২০১১), সোহাগ গাজী (২০১২), তাইজুল ইসলাম (২০১৪) ও মেহেদি হাসান মিরাজ (২০১৬) এই রেকর্ড করেন।

নাঈমের পিতা সাবেক কাউন্সিলর মাহবুবু রহমান

 

লেখক :: সাধারণ সম্পাদক, চট্টগ্রাম রিপোর্টার্স ফোরাম (সিআরএফ) ও বিশেষ প্রতিনিধি, আমাদের নতুন সময়