ঢাকা, বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮ , , ৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৩৯

খালেদা জিয়াকে সরকার ভয় পায়,মির্জা ফখরুল

নিউজ ডেস্ক,ঢাকা: । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: মে ১৮, ২০১৮ ২:১৩ দুপুর

শুক্রবার (১৮ মে) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নয়াপল্টনের ভাসানী ভবনে একটি গানের সিডি উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‌খালেদা জিয়াকে সরকার ভয় পায়। সেজন্য তাকে কারাবন্দি করে রেখেছে। তারা জানে যদি খালেদা জিয়া বাইরে থাকেন তাহলে জনগণের জোয়ার সৃষ্টি হবে। আগামী নির্বাচনে যদি খালেদা জিয়া অংশ নেন তাহলে তাদের ভরাডুবি হবে। এ কারণে তারা অত্যন্ত সুকৌশলে চক্রান্ত করে নির্বাচনের আগে এ মামলার কার্যক্রম দ্রুত শেষ করতে চায়।

মার্কিন রাষ্ট্রদূতও খুলনার নির্বাচনের তদন্ত চেয়েছেন উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, আজকে সারা পৃথিবী জানে বাংলাদেশে কোনো গণতন্ত্র নেই। গণতন্ত্রের কোনো জায়গা নেই। সরকারের একটাই কাজ প্রতিপক্ষকে দমন করা।

তিনি বলেন, আমরা স্পষ্ট করে বলেছি আগামী সংসদ নির্বাচন কখনো গ্রহণযোগ্য হবে না, যদি বিরোধীদল সেই নির্বাচনে অংশ না নেয়, যদি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সেই নির্বাচন না হয়, যদি সংসদ ভেঙে দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা না হয়। ৫ জানুয়ারির মতো কোনো নির্বাচন এদেশের জনগণ আর মেনে নেবে না।

ঢাকা মহানগর বিএনপির নেতাকর্মীদের উদ্দেশে মহাসচিব বলেন, মহানগরের দিকে সবাই তাকিয়ে থাকে। আপনারা সংগঠিত হন, যখনই ডাক দেবে তখনই রাস্তায় নামতে হবে।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ও বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেলের লেখা গান ‘কোটি জনতার মা-পর্ব -১’ নামের গানের সিডির এই উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার। পরিচালনা করেন স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সহ-দফতর সম্পাদক আক্তারুজ্জামান বাচ্চু।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অভিনেতা আশরাফ উদ্দিন খান উজ্জ্বল, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সহ-সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী মনির খান, স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, কন্ঠশিল্পী নাসির প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং কর্মকর্তা শামসুদ্দিন দিদার, বিএনপি নেতা অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম, সালাহ উদ্দিন শিশির, আকবর হোসেন নান্টু, জাসাসের ভাইস প্রেসিডেন্ট আহসান উল্লাহ চৌধুরী, মাকসুদুর রহমান টিপু, মহানগর বিএনপি নেতা মীর হোসেন মিরু, ইকবাল হোসেন নান্টু প্রমুখ।