ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮ , , ৫ সফর ১৪৪০

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে টাকার বিনিময়ে ব্যবহারিক খাতায় স্বাক্ষর!

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: মে ২৭, ২০১৮ ২:৩৬ দুপুর

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ব্যবহারিক খাতায় স্বাক্ষর করতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৫শ’ টাকা করে আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার রাজপাট ডিগ্রি কলেজের সংশ্লিষ্ট বিভাগের শিক্ষকদের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
উপজেলার রাজপাট ডিগ্রি কলেজে এইচএসসি ব্যবহারিক পরীক্ষায় বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষা, মানবিক বিভাগের পরীক্ষার্থীদের প্রত্যেকের কাছ থেকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, কৃষি শিক্ষা বিষয়ে ব্যবহারিক খাতায় স্বাক্ষর করতে ৩০০ থেকে ১ হাজার ৩৪০ টাকা পর্যন্ত আদায় করেছে সংশ্লিষ্ট বিভাগের শিক্ষকরা। শিক্ষকদের দাবি করা টাকা না দিলে ব্যবহারিক খাতায় স্বাক্ষর না করাসহ পরীক্ষায় ফেল করানোর হুমকি দেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে শিক্ষকদের বিরুদ্ধে। ফলে বাধ্য হয়ে শিক্ষার্থীরা শিক্ষকদের দাবিকৃত টাকা দিতে বাধ্য হয়েছে।
ওই কলেজের শিক্ষার্থী বিউটি বিশ্বাস বলেন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এবং কৃষি শিক্ষাসহ দুই পত্রের ব্যবহারিক পরীক্ষা ও খাতা স্বাক্ষরের জন্য শিক্ষকদের ৫শ’ টাকা দিয়ে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন। কিছু টাকা কম নেওয়ার জন্য অনুরোধ করলেও তাকে নম্বর কম দেওয়ার ভয় দেখানো হয়।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে অপর এক শিক্ষার্থী জানায়, আমি তথ্য ও প্রযুক্তি এবং কৃষি শিক্ষা দুই পত্রের জন্য স্যারদের কে ১ হাজার ৩৪০ টাকা দিয়েছি। যার কারণে আমার ব্যবহারিক পরীক্ষার খাতায় কোনো কিছু আঁকা এবং লেখা লাগেনি।
এ ব্যাপারে ওই কলেজের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ের শিক্ষক সুদেব বালার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কলেজ কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে এক এক বিষয়ে ৩শ’ এবং ২ বিষয়ে ৫শ’ করে টাকা নিয়েছেন। ব্যক্তিগত ভাবে এক টাকাও নেওয়া হয়নি। আপনারা এ বিষয়ে কলেজের অধ্যক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।
এ ব্যাপারে কলেজ অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) মো: মনিরুজ্জামানের সঙ্গে কথা বলার জন্য তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে কল দিয়ে সাংবাদিক পরিচয় দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তিনি এখন ব্যস্ত আছি বলে কল কেটে দিয়ে মোবাইল ফোন ফোনচি বন্ধ করে রাখেন।
এ ব্যাপারে কাশিয়ানী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ এস এম মাঈন উদ্দিন বলেন, কেউ নিয়ম বহির্ভূত ভাবে অর্থ আদায় করলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।