ঢাকা, বুধবার, ২০ মার্চ ২০১৯ , , ১৩ রজব ১৪৪০

গ্যাসের দাম বাড়ালে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

নিউজ ডেস্ক,ঢাকা । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: মার্চ ১৪, ২০১৯ ৬:০৯ সকাল

গ্যাসের দাম বাড়ালে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি
গণশুনানির নামে প্রতারণা ও এলএনজি ব্যবসায়ীদের মুনাফার স্বার্থে গ্যাসের দাম বাড়ানোর পাঁয়তারা বন্ধ না করা হলে কঠোর আন্দোলন হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বাম গণতান্ত্রিক জোটের নেতৃবৃন্দ।

বুধবার বাম গণতান্ত্রিক জোটের নেতৃবৃন্দ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন কার্যালয়ের সামনে গণঅবস্থান কর্মসূচি থেকে এ হুঁশিয়ারি দেন।

জোটের সমন্বয়ক বাসদ নেতা বজলুর রশীদ ফিরোজের সভাপতিত্বে অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন- বাম জোটের শীর্ষ নেতা বাসদ সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান, সিপিবি সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম, বাসদ মার্কসবাদী নেতা মানস নন্দী, গণসংহতি আন্দোলনের মনিরুদ্দিন পাপ্পু, কম্যুনিস্ট লীগের নেতা নজরুল ইসলাম, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা মোফাজ্জল হোসেন মোস্তাক, সিপিবির রুহিন হোসেন প্রিন্স।

সমাবেশ পরিচালনা করেন বাসদ নেতা জুলফিকার আলী। কর্মসূচিতে আরও উপস্থিত ছিলেন বাসদ নেতা রাজেকুজ্জামান রতন, ইউসিবিএল নেতা মোশাররফ হোসেন নান্নু, গণসংহতি আন্দোলনের নেতা বাচ্চু ভূইয়া, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা আকবর খান, সিপিবি নেতা জলি তালুকদার, শামীম, বাসদ মার্কসবাদী নেতা জহিরুল ইসলাম, বাসদ নেতা আবদুর রাজ্জাক, খালেকুজ্জামান লিপন প্রমুখ।

নতুন করে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন গত ১১ মার্চ থেকে কারওয়ান বাজার কার্যালয়ে গণশুনানির আয়োজন করছে। গত তিন দিনে পেট্রোবাংলা, তিতাস, বাখারাবাদ, জালালাবাদসহ বিভিন্ন গ্যাস বিতরণ ও সঞ্চালন কোম্পানির পক্ষ থেকে দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব তুলে ধরা হয়। বুধবার ছিল গণশুনানির তৃতীয় দিন।

অবস্থান কর্মসূচিতে নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, বিইআরসির দায়িত্ব ভোক্তা স্বার্থ রক্ষা করা কিন্তু তাদের অতীত ইতিহাস তারা গণশুনানির নামে সরকারের ইচ্ছা ও সিদ্ধান্তের শুনানি করে। ফলে দাম বাড়ানোর গণশুনানি বন্ধ করে, দাম কমানোর জন্য গণশুনানির আয়োজন করতে বিইআরসির প্রতি নেতৃবৃন্দ আহ্বান জানান।

অন্যথায় কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়ে নেতৃবৃন্দ দাম বাড়ানোর পাঁয়তারার বিরুদ্ধে সর্বস্তরের দেশপ্রেমিক জনগণকে বাম জোটের নেতৃত্বে আন্দোলনে সামিল হওয়ার আহ্বান জানান।

নেতৃবৃন্দ বলেন, গ্যাস এমন একটি উপাদান যার দাম বাড়লে জনসাধারণের জীবনধারনের জন্য প্রয়োজনীয় প্রায় সকল জিনিসের দাম বেড়ে যায় এবং জনগণের ভোগান্তি বাড়ে, জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়ে যায়, দুর্ভোগে পড়ে সাধারণ মানুষ।