ঢাকা, বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ , , ৬ সফর ১৪৪০

‘বঙ্গবন্ধু’ লিখতে ভুল করায় ছাত্রলীগের প্রতিবাদ

রংপুর করেসপন্ডেন্ট । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: জুলাই ৯, ২০১৮ ১:১৯ দুপুর

রংপুর: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা মুখতার ইলাহীর নামের বানান ভুল লেখার প্রতিবাদে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে ছাত্রলীগ নেতারা।

সোমবার বেলা ১১টায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা দোষীদের চাকরি থেকে অব্যাহতির দাবি জানিয়ে প্রশাসনিক ভবনের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ করে।
সমাবেশ শেষে প্রশাসনিক ভবন থেকে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বের করে দিয়ে তালা ঝুলিয়ে দেয়। এতে স্থবির হয়ে পড়ে পুরো বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম।
এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী শরীফ হোসাইন পাটোয়ারি এবং কম্পিউটার অপারেটর রাকিবুল ইসলাম শ্যামলকে সাময়িক অব্যাহতি দিয়ে তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দিলে বেলা ৩টার দিকে তালা খুলে দেয় ক্ষুদ্ধ ছাত্রলীগ নেতারা।
শহীদ মুখতার ইলাহী হলের ছাত্রলীগ নেতারা জানায়, গত ৪ জুলাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল, শহীদ মুখতার ইলাহী হল বরাবর প্রকৌশল দপ্তর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রকৌশলী শরীফ হোসাইন পাটোয়ারির স্বাক্ষরিত একটি চিঠি ইস্যু করা হয়। সেই চিঠিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জায়গায় ‘বঙ্গবন্দু শেখে’ এবং শহীদ মুখতার ইলাহীর জায়গায় ‘মোখতার, মূখতার’ ইলাহী লেখা হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামের বানান ৪ জায়গায় এবং শহীদ মুখতার ইলাহীর নামের বানান ২ জায়গায় ভুল থাকায় বিষয়টি নিয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে প্রাথমিক প্রতিবাদ জানায় হল সভাপতি হাসান আলী।
পরে সেই চিঠি ফেরত নিয়ে আবারো একই ভুল করে আরও একটি চিঠি পাঠানো হয়। বারবার একই ভুল করায় সোমবার ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা প্রকৌশল অধিদপ্তর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে অবস্থান নেয়। ছাত্রলীগের তালা ঝোলানোর পর ভোগান্তিতে পড়ে ভর্তি ও ফর্ম পূরণ করতে আসা বিভিন্ন বিভাগের কয়েক শতাধিক শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে অনেকেরই আজ ভর্তি ও ফর্ম পূরণের শেষ দিন ছিল।
এদিকে বঙ্গবন্ধুর নামের বানান ভুলের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর (চলতি দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. একেএম ফরিদ-উল ইসলামকে আহ্বায়ক ও প্রক্টর ছদরুল ইসলাম সরকারকে সদস্য সচিব সহকারী এবং সহকারী প্রক্টর আতিউর রহমানকে সদস্য করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে প্রশাসন। ওই কমিটিকে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তদন্ত শেষে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়।
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর (চলতি দায়িত্ব) প্রফেসর ড. ফরিদ উল ইসলাম জানান, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
বিষয়টি নিয়ে উপাচার্য ড. নাজমুল আহসান কলিম উল্লাহের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি।