ঢাকা, শনিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৭ , , ৩০ মুহররম ১৪৩৯

রোহিঙ্গা প্রবেশে এখন সরকারের দোষ দেখছে বিএনপি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: অক্টোবর ১, ২০১৭ ১২:১৭ দুপুর

ঢাকা :: মিয়ানমারের রাখাইনে দমন-পীড়নের মুখে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ঢল ঠেকাতে কঠোর অবস্থান না নেওয়ায় সরকারের সমালোচনা করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস।

রোববার রাজধানীর নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি রোহিঙ্গা ইস্যুতে সরকারকে ‘শক্ত ভাষায় কথা বলার’ পরামর্শ দেন।

মির্জা আব্বাস বলেন, ‘‘যখন মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের পাঠানো শুরু করলো বাংলাদেশের ভেতরে, তখন যদি আমাদের সরকার একটা কঠিন অবস্থান নিত যে একজন রোহিঙ্গাও ভেতরে ঢুকতে পারবে না, একজন রোহিঙ্গার গায়ে হাত দেওয়া যাবে না।

“যদি এই অবস্থান সরকার নিতো, মিয়ানমার সরকারের সাধ্য ছিলো না তাদেরকে বাংলাদেশে পাঠানোর।”

গত ২৪ অগাস্ট রাতে বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (এআরএসএ)রাখাইনে ৩০টি পুলিশ পোস্ট ও একটি সেনা ঘাঁটিতে হামলা চালালে পুলিশসহ বেশ কয়েকজন নিহত হওয়ার পর থেকে রোহিঙ্গা গ্রামগুলোতে অভিযান শুরু করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী।

দমন-পীড়নের মুখে পাঁচ লাখের বেশি রোহিঙ্গা সীমান্তবর্তী জেলা কক্সবাজারে আশ্রয় নিয়েছে। আগে থেকেই প্রায় পাঁচ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেওয়া বাংলাদেশ বিশাল সংখ্যক শরণার্থী নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে।

একদম শুরুর দিকে দুয়েক দিন সীমান্তরক্ষীরা রোহিঙ্গাদের কিছুটা ঠেকানোর চেষ্টা করলেও পরে তাদের জন্য সীমানা খুলে দেওয়া হয়।

সেজন্য রোহিঙ্গাদের ঢুকতে বাধা দিয়ে সরকার অমানবিক কাজ করছে বলে এতোদিন বিএনপি নেতারা সমালোচনা করে আসছিলেন।

রোহিঙ্গাদের প্রশ্নে ভারতের অবস্থানের সমালোচনা করে এই বিএনপি নেতা বলেন, “আজকে যখন নাকি কসাইয়ের মতো মানুষ কাটছে মিয়ানমারে, তখন ভারত বললো আমরা মিয়ানমারের পাশে আছি। আবার এখন ভারত বলে রোহিঙ্গা সমস্যায় আমরা বাংলাদেশের পাশে আছি।

“আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, রোহিঙ্গা ইস্যুতে আমাদের কারো পাশে দরকার নাই। এখন ইস্যু হলো মিয়ারমান ইস্যু, রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর ইস্যু।”

দুপুরে বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রয়াত সদস্য আসম হান্নান শাহের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আগে এই আলোচনা সভা হয়।

হান্নান শাহের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের স্মৃতি তুলে ধরে তার আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মির্জা আব্বাস।

বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরীর পরিচালনায় মিলাদ মাহফিলে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সাংগঠনিক সম্পাদক ও গাজীপুর জেলা সভাপতি ফজলুল হক মিলন, সাধারণ সম্পাদক কাজী সাইয়্যেদুল আলম বাবুল, প্রয়াত নেতার ছোট ছেলে আসম রিয়াজুল হান্নান বক্তব্য দেন।

মিলাদে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালাম, শাহজাদা মিয়া, কেন্দ্রীয় নেতা মীর সরফত আলী সপু, কামরুজ্জামান রতন, এম এ মালেক, অঙ্গসংগঠনের আবদুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল, রাজীব আহসানসহ কয়েকশ নেতা-কর্মী অংশ নেন।