ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , , ৮ মুহররম ১৪৪০

শীতে নাকাল অনশনকারী শিক্ষকরা, অসুস্থ ১০৬

নিজস্ব প্রতিবেদক । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: জানুয়ারি ১৩, ২০১৮ ৬:২৮ সকাল

জাতীয়করণের দাবিতে তীব্র শীতের মধ্যে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আমরণ অনশন কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষকরা। শুক্রবার চতুর্থ দিনের মতো অনশন করছেন তারা। এ চার দিনে ১০৬ শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে জানা গেছে। এর মধ্যে সাতজন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত চলবে এ কর্মসূচি।

বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের রেজিস্ট্রেশনপ্রাপ্ত ইবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষকরা ‘বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির’ ব্যানারে এ কর্মসূচি পালন করছেন।

বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির মহাসচিব কাজী মোখলেছুর রহমান জানান, এ পর্যন্ত ১০৬ অনশনকারী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এর মধ্যে সাতজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিরা অনশনস্থলে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। তাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

মঙ্গলবার থেকে চাকরি জাতীয়করণের দাবিতে অনশন শুরু করেন ইবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষকরা। এখন পর্যন্ত সরকারের পক্ষ থেকে কোনো আশ্বাস পাননি তারা। অনশনরত শিক্ষকরা বলেন, ইবতেদায়ি মাদ্রাসার সব কার্যক্রম প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো হলেও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বেতন-ভাতা পেলেও ইবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষকরা তেমন কিছুই পান না। দিন দিন বাসা ভাড়া থেকে শুরু করে নিত্যপণ্যসহ সবকিছুর দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাহলে আমরা কীভাবে বাঁচব?

সংগঠন থেকে জানানো হয়, ১৯৯৪ সাল থেকে একই পরিপত্রে নিবন্ধিত বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষকদের বেতন ৫০০ টাকা করা হয়। এরপর বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি পায় ধাপে ধাপে।

২০১৩ সালের ৯ জানুয়ারি মহাজোট সরকার ২৬ হাজার ১৯৩ বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করে। কিন্তু স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদ্রাসার শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি কিংবা জাতীয়করণ কোনোটিই হয়নি।