ঢাকা, বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮ , , ৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৩৯

সাতকানিয়া আওয়ামী যুবলীগ বহাল থাকা কমিটি বাতিল না করে আহবায়ক কমিটি ঘোষনা পাল্টাপাল্টি শো-ডাউন

শহীদুল ইসলাম বাবর, বিশেষ প্রতিনিধি । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: এপ্রিল ২০, ২০১৮ ৩:৫০ দুপুর

নিয়মিত কমিটি বাতিল না করে সাতকানিয়া যুবলীগের আহবায়ক কমিটি গঠন ও অনুমোধনকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে সাতকানিয়ায় যুবলীগের রাজনীতি। গতকাল দুই পক্ষ সাতকানিয়া সদরে পাল্টাপাল্টি মিছিল সমাবেশ করেছে।
জানা যায়, গত ৬ ফেব্রুয়ারী যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মো.হারুনুর রশীদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত কমিটিকে ৯০ দিনের মধ্যে প্রতিটি ইউনিয়নে সম্মেলন করে পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করার জন্য বলা হয়েছে। কেন্দ্র গঠিত আহবায়ক কমিটিতে উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক সাইদুর রহমান দুলালকে আহবায়ক, মার্দাসা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও সাংসদ প্রফেসর ড. আবু রেজা মোহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীর ভাতিজা আ ন ম সেলিম চৌধুরী এবং সাবেক ছাত্রলীগ নেতা

হারেজ মোহাম্মদকে যুগ্ন আহবায়ক করা হয়। এছাড়াও সদস্য রাখা হয়েছে ১৮ জনকে। এদিকে ঘোষিত কমিটিতে সদস্য তালিকায় থাকা নিজের নাম প্রত্যাহারের ঘোষনা দিয়েছেন পৌর যুবলীগের সভাপতি পৌর কাউন্সিলর সাইফুল আলম সোহেল ও সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন মিন্টু। শুক্রবার দুপুরে নব গঠিত আহবায়ক কমিটির নেতারা সাতকানিয়া সদরে শো-ডাউন করেন। পরে বিকেলে মুল কমিটির নেতারা সাতকানিয়া সদরে কালো পতাকা মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেন। এ সভায় যুবলীগ নেতৃবৃন্দ ছাড়াও সাতকানিয়া আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কুতুব উদ্দিন চৌধুরী,দক্ষিন জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য আবুল কালাম আজাদ, সাতকানিয়ার যুগ্ন সম্পাদক জসিম উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ শাহজাহানও বক্তব্য রাখেন। মূল কমিটির সভাপতি একেএম আসাদ বলেন, আমাদের কমিটি ঘোষিত

হয়েছিল ২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর। সেই হিসেবে কমিটির মেয়াদ থাকে ২০১৯ সালের ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত। মেয়াদপূর্ণ হওয়ার আগে পূর্নাঙ্গ কমিটি বহাল থাকাবস্থায় আহবায়ক কমিটির কোন কার্যকারীতা নেই। কারন আমাদের কমিটির মেয়াদ ২০১৯ সালের ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত রয়েছে। আমাদের কমিটি বাতিল না করে নতুন আহবায়ক কমিটির কোন কাজ নেই। কমিটি বাতিল না করা পর্যন্ত আমাদের কার্যক্রম চলবে। ঘোষিত কমিটি থেকে নিজের নাম প্রত্যাহারের বিষয়ে জানতে চাইলে বিষয়ে নাছির উদ্দিন মিন্টু বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আমি সাতকানিয়া যুবলীগের আহবায়ক কমিটি দেখতে পায় এবং সেখানে আমার নামও লিপিবদ্ধ ছিল। একটি কমিটি রানিং থাকাবস্থায় কোন ধরনের আলোচনা ছাড়া একটি আহবায়ক কমিটি চাপিয়ে দেওয়া উচিত হয়নি। তাই আমি ঘোষিত কমিটিতে থাকতে অপারগতা প্রকাশ করেছি।

ঘোষিত কমিটির যুগ্ন আহবায়ক হারেজ মোহাম্মদ বলেন, যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মো. হারুনুর রশীদ স্বাক্ষরযুক্ত ২১ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটিকে ৯০ দিনের মধ্যে প্রতিটি ইউনিয়ন শাখার সম্মেলন করে উপজেলা শাখার সম্মেলন সম্পন্ন করতে বলা হয়েছে। আমাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব আমরা যথাযথ ভাবে পালন করার চেষ্টা করব। ঘোষিত কমিটির বিষয়ে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি আ ম ম টিপু সোলতান চৌধুরী বলেন, সাতকানিয়ায় আহবায়ক কমিটি কেন্দ্র থেকে দিয়েছে বলে শুনেছি। তবে এখনো পযন্ত কেন্দ্র থেকে কোন নির্দেশনা বা কমিটির কোন কাগজ অফিসিয়ালি পাইনি। কপি পাওয়ার পর সবাইকে নিয়ে বিষয়টি সামাধানের চেষ্টা করব।