ঢাকা, সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ , , ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪০

সাদামনের মানুষ একজন শুকলাল শীল

কে,ডি পিন্টু । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: জানুয়ারি ২২, ২০১৯ ৭:০৬ দুপুর

চট্টগ্রামে লোহাগাড়া উপজেলার বড় হাতিয়া ইউনিয়নের শুকলালশীল একজন সাদা মনের মানুষ হিসেবে সর্বমহলের কাছে সুপরিচিতি ও সু-খ্যাতি অর্জন করেছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের প্রতি নিজেকে নিয়োজিত রেখে এ শিক্ষানুরাগী ও সমাজ সেবক চট্টগ্রামের মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন সর্বদা। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ.জ.ম.নাছির উদ্দিনের একান্ত আস্থাভাজন মানুষ হিসেবে পরিচিত তিনি। বিভিন্ন সময় রাজনীতির কঠিন বাধাকে উপেক্ষা করার পরও কঠিন পথ পাড়ি দিয়ে আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা অর্জন করে চলেছেন প্রতিনিয়ত। বাল্যকাল হতে সাধারন মানুষের পাশে থাকার জন্য চেষ্টা করেছেন সর্বদা।

শয়নে স্বপনে সর্বদা মানুষের কল্যাণে কাজ করার ব্রত নিয়ে এগিয়ে চলা নির্লোভ মানুষটি চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় সুখ্যাতি অর্জন করেছেন মৃদুভাষী হিসেবে। নিজের এলাকায় বিভিন্ন স্থানে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রেখে চলছেন বাবু শুকলাল শীল। বর্তমান সময়ে বড় হাতিয়া ইউনিয়নে ঐতিহ্যবাহী বি.জি.সেনের হাট উচ্চ বিদ্যালয়ের শ্রেনী কক্ষ তার নিজের অর্থায়নে নির্মান করে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

এ বিষয়ে তিনি বলেন এই বিদ্যালয়ে আমার ছেলে মেয়েরা পড়বে না। কিন্তু আমার এলাকার ছাত্র-ছাত্রীরা এখানে পড়বে। আমি সব সময় ওদের কথা চিন্তা করি। এছাড়া তিনি সমাজের উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন মন্দির মসজিদ নির্মানে বিভিন্ন জায়গায় আর্থিক সহায়তা করে আসছেন প্রতিনিয়ত। গরীব দুঃখী অসহায় মানুষের পাশে তিনি সব সময় সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। তিনি বড় হাতিয়া গ্রামে এসেছে বলে শুনলে শত শত লোক তার সাথে সাক্ষাৎ করার জন্য চলে আসেন। তাছাড়া তিনি চট্টগ্রামে চাঁদগাঁও এলাকায় একজন সুপরিচিত দানশীল পরোপকারী লোক হিসেবে নিজেকে তুলে ধরেছেন। তাহার নির্মিত সানোয়ারা আবাসিক এলাকায় শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ্র সেবাশ্রম প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তিনি প্রমাণ করেছেন ইচছা থাকলে উপায় হয়। তাছাড়া তিনি সানোয়ারা আবাসিক এলাকার দর্জি পাড়ায় জামে মসজিদের উন্নয়নের জন্য প্রতিনিয়ত আর্থিক সহায়তা করে থাকেন এবং এলাকার সর্বস্তরের জনগনের বিভিন্ন সময়ে আপদে বিপদে তিনি সব সময়ে তাদের পাশে থাকেন।

এই ব্যাপারে সানোয়ারায় আবাসিক এলাকায় বিসমিল্লাহ ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের মালিক সাজ্জাদ হোসেন বলেন, শুকলাল শীল ব্যক্তিটি খুবই পরোপকারী ও দানশীল। তিনি এলাকার অসহায় মানুষের সব সময় পাশে থাকেন। ওনার মতো ভাল মানুষ এই চট্টগ্রাম শহরে আছে কি না সন্দেহ। বিগত সময় থেকে এখন এলাকার স্কুল, কলেজ, মন্দির, মসজিদ, রাস্তাঘাট নির্মানসহ সমস্ত চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন এলাকায় মানুষের পাশে থেকে কাজ করে যাচ্ছেন এই সাদা মনের মানুষ শুকলাল শীল। সাধারন মানুষের জন্য তার সামাজিক উন্নয়ন কর্মকান্ড এলাকায় সুনাম সুখ্যাতি ছড়িয়ে যাচ্ছে দিনের পর দিন।

সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিনের কাছে শুকলাল শীলের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, শুকলাল শীলের মত হাজারো সাদা মনের মানুষ প্রয়োজন আমাদের সমাজে। তাঁর মতো মানুষ থাকলে এলাকার উন্নতি হবেই। সাদা মনে শুকলাল শীল সত্যি সত্যিই একজন চমৎকার মানুষ।