ঢাকা, শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ , , ৬ রবিউস সানি ১৪৪০

সুনামগঞ্জ ৫ আসনে বর্তমান ও সাবেক সংসদসহ মাঠে ৯ প্রার্থী

রবিউল ইসলাম তারেক ছাতক থেকে । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: আগস্ট ১৩, ২০১৮ ১:৫৯ দুপুর

সুনামগঞ্জ-৫ আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে প্রার্থীদের মধ্যে ব্যাপক তৎপরতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, খেলাফত মজলিশ ও জামায়াতে ইসলামীসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা প্রচারনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা সভা-সমাবেশ ও সামাজিক অনুষ্টানে উপস্থিত হয়ে প্রার্থীতার কথা ঘোষণা দিচ্ছেন। পাশাপাশি দলীয় মনোনয়নের জন্য দৌড় -ঝাপ শুরু করেছেন। ছাতক ও দোয়ারা বাজার উপজেলা নিয়ে সুনামগঞ্জ ৫ সংসদীয় আসন। এ আসনে মোট ভোটার রয়েছেন ৪ লক্ষ৫৩হাজার ৫৫৪। ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১৫৬ টি। ছাতক-দোয়ারা বাজার নির্বাচনী এলাকায় আওয়ামীলীগের ২জন, বিএনপির ২জন ও জাতীয় পার্টির ২জন মনোনয়ন যুদ্ধে মাঠে রয়েছেন । স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার লক্ষে মাঠে রয়েছেন আরো তিন প্রার্থী। আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক ও সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক শামীম আহমদ চৌধুরী। বিএনপির মনোনয়ন পেতে আগ্রহী সাবেক সংসদ সদস্য, সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন ও ছাতক উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী। এদিকে জাতীয় পার্টির দলীয় মনোনয়ন পেতে জোর লবিং করছেন জাপার কেন্দ্রীয় সদস্য আ.ন.ম কনা মিয়া ও কেন্দ্রীয় সদস্য আলহাজ¦ জাহাঙ্গীর আলম। স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে পারেন জামাতের মাওলানা আব্দুস সালাম আল মাদানী, খেলাফত মজলিশের কেন্দ্রীয় যুগ্ন মহা সচিব মাওলানা শফিক উদ্দিন ও আওয়ামীলীগের আয়ুব করম আলী। বিগত ১০টি সংসদ নির্বাচনের মধ্যে আওয়ামীলীগের প্রার্থী ৩বার ও উপনির্বাচনে ১বার, বিএনপির প্রার্থী ২বার, জাসদের প্রার্থী ১বার, জাপা প্রার্থী ১বার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ৩বার করে এ আসনে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। ছাতক-দোয়ারা আসন থেকে আওয়ামীলীগের মুহিবুর রহমান মানিক ও বিএনপির কলিম উদ্দিন আহমদ তিন বার করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সুনামগঞ্জ ৫ আসনে আওয়ামীলীগ, বিএনপি, জামাত, জাপা ও খেলাফত মজলিশ ছাড়া অন্য কোন দলের তৎপরতা নেই। উল্লেখিত দল ছাড়া জোট-মহাজোটের অন্যন্য দলের কোন নেতা কর্মীদের মাঠে কাজ করতে এখনো দেখা যায়নি। ছাতক-দোয়ারায় আওয়ামীলীগ ও বিএনপির রয়েছে বিশাল ভোট ব্যাংক। আগামী সংসদ নির্বাচনে এ ভোট ব্যাংক কাজে লাগাতে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন দু’ দলের নেতাকর্মীরা। আওয়ামীলীগ চায় আসনটি ধরে রাখতে আর বিএনপি আসন উদ্ধারে মরিয়া হয়ে উঠেছে। আওয়ামীলীগ ও বিএনপির মধ্যে দলিয় কোন্দল ও বিদ্যমান রয়েছে দীর্ঘ দিনের। দলের হাই কমান্ড বার বার উদ্যোগ গ্রহন করে ও কোন্দল নিরসনে ব্যর্থ হয়েছেন। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হবেন জানিয়ে মুহিবুর রহমান মানিক বলেন, ছাতক-দোয়ারা উন্নয়নের তিনি কাজ করে যাচ্ছেন। এ উন্নয়ন ধরে রাখতে দল নেত্রী শেখ হাসিনা তাকেই মনোনয়ন দেবেন। জেলা আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক শামীম আহমদ চৌধুরী জানান, দলীয় হাই কমান্ডের নির্দেশনা অনুযায়ি তিনি মাঠে কাজ করছেন। দলীয় মনোনয়ন তাকেই দেয়া হবে। সাবেক এমপি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন জানান, দেশে নির্বাচনের পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে এ আসন থেকে তিনি বিএনপির মনোনয়ন পাবেন। সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী জানিয়েছেন, দল নির্বাচনে অংশ নিলে বিএনপির মনোনয়ন পাওয়ার আশাবাদী তিনি। জামাত নেতৃবৃন্দেরা জানান, সুনামগঞ্জ ৫আসন জামাতে ইসলামের মাওলানা আব্দুস সালাম আল মাদানীকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষনা করা হয়েছে। আওয়ামীলীগের আয়ুব করম আলী জানিয়েছেন, তিনি দু’ বার আওয়ামীলীগের মনোনয়ন চেয়ে না পাওয়ায় এবার তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন। খেলাফতে মজলিশের কেন্দ্রীয় যুগ্ন মহা সচিব মাওলানা শফিক উদ্দিন জানান, ২০ দলীয় জোটের পক্ষ থেকে মনোনয়ন চাইবেন তিনি। জাপার কেন্দ্রীয় সদস্য আ.ন.ম ওহিদ কনা মিয়া ও কেন্দ্রীয় সদস্য আলহাজ¦ জাহাঙ্গীর আলম জানান, এ আসনটি জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দিতে পার্টির চেয়ারম্যান মহাজোটের কাছে অনুরোধ করেছেন। জাতীয় পার্টি এ আসন পেলে আ.ন.ম. ওহিদ কনা মিয়া এ আসনে প্রার্থী হবেন বলে জানান। এদিকে আলহাজ¦ জাহাঙ্গীর আলম জানান দলের চেয়ারম্যান তাকেই মনোনয়ন দেবেন। ছাতক-দোয়ারা আসনে নির্বাচন করতে ৯ প্রার্থীই এখন মাঠ পর্যায়ে সভা-সমাবেশ ও গন সংযোগ অব্যাহত