ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯ , , ১৯ রজব ১৪৪০

হতাশা দিয়েই বছর শুরু

হতাশা দিয়েই বছর শুরু । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: জানুয়ারি ১৪, ২০১৯ ৮:৩৭ সকাল

গত বছর দেশীয় ছবি দেবী ও যৌথ প্রযোজনার স্বপ্নজাল দেশ–বিদেশে সুনাম অর্জন করলেও মুক্তিপ্রাপ্ত ছবির সংখ্যা ছিল গত তিন বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন। ২০১৮ সালে দেশীয় ছবি মুক্তি পায় ৩৫ টি, আমদানি করা ছবি ৯টি ও যৌথ প্রযোজনার ২টি। সেই ধারাবাহিকতায় যেন ২০১৯ সালটিও শুরু হয়েছে। নতুন বছরের প্রথম মাসে ঢাকার চলচ্চিত্র যেন হতাশা দিয়ে যাত্রা শুরু করল। মাসের অর্ধেকটা চলে গেল, এখনো দেশীয় কোনো ছবি প্রেক্ষাগৃহে ওঠেনি বললেই চলে। ৪ জানুয়ারি আই অ্যাম রাজ নামে একটি দেশীয় ছবি মাত্র চার-পাঁচটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে। একই দিন আমদানি করা কলকাতার ছবি বিসর্জন মুক্তি পায়। এরপর আর কোনো ছবি মুক্তি পায়নি। ১৮ জানুয়ারি নতুন কোনো ছবি মুক্তির সংবাদ নেই। ২৫ জানুয়ারি যৌথ প্রযোজনার ছবি প্রেম আমার ২ মুক্তির কথা থাকলেও ছবিটির এখনো প্রিভিউ ও সেন্সর হয়নি। ছবির বাংলাদেশ অংশের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া সূত্রে জানা গেছে, মুক্তির আগের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে ২৫ জানুয়ারি প্রেম আমার ২–এর মুক্তি এখনো অনিশ্চিত।

তবে চলচ্চিত্রের এই অবস্থার জন্য চলচ্চিত্রের একটি গোষ্ঠীকে দায়ী করে আরও খারাপের ইঙ্গিত দিলেন চলচ্চিত্র প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার চেয়ারম্যান আবদুল আজিজ। তিনি বলেন, ‘চলচ্চিত্রের নেতাদের বিগত দিনের আন্দোলনের ফলেই বর্তমান এই দুরবস্থা। এসব নেতা আমাদের চলচ্চিত্রকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেছেন। তাঁরা নেতাগিরিই করেছেন। আমাদের চলচ্চিত্র নিয়ে ভাবেননি। অনেকটাই কলকাতার চলচ্চিত্রের বাজার তৈরি করে দিয়েছেন। প্রথম মাসের চলচ্চিত্রের মুক্তির অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে, সামনে আমাদের চলচ্চিত্রের অবস্থা আরও খারাপ হবে।’

এ ব্যাপারে অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা মিম বলেন, ‘অনেক সময় শুরুটা খারাপ হলেও শেষটা ভালো হয়। অনেকেই তো বলেন, ঢাকার চলচ্চিত্রের সুদিন আসছে। আমিও তা-ই মনে করি। কারণ অনেক দিনই তো খারাপ অবস্থা যাচ্ছে। ভালো অবস্থা হয়তো তাড়াতাড়িই ফিরবে।’