ঢাকা, শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ , , ৬ রবিউস সানি ১৪৪০

হাজিদের সেবা প্রদানে ত্রুটি অস্বীকার মোয়াচ্ছাসার

নিউজ ডেস্ক,ঢাকা । সি এন এন বাংলাদেশ

আপডেট: আগস্ট ২৬, ২০১৮ ৭:০৯ সকাল

 

পবিত্র হজ পালনকালে মিনা, আরাফাত ও মুজদালিফায় বাংলাদেশি হাজিদের সেবা প্রদানে ত্রুটি অভিযোগ অস্বীকার করেছে মোয়াচ্ছাসা (সৌদি হাজি সেবা সংস্থা)। সংস্থাটির সহ-সভাপতি বলেছেন, হজ চুক্তি অনুসারে মক্কা-মদিনায় বাড়ি বরাদ্দ, মিনা ও আরাফাতে পরিবহন, তাঁবু ও খাবার সরবরাহ করা হয়েছে। কোনো অভিযোগ থাকলে তা ঢালাওভাবে না করে তথ্য-উপাত্ত সহকারে করা উচিত বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

হাব মহাসচিব শাহাদাত হোসেন তছলিমের বক্তব্যে এ-সংক্রান্ত কিছু অভিযোগের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে মোয়াচ্ছাসার সহ-সভাপতি প্রকৌশলী জাকি বিন ওমর হারিরি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, চুক্তিতে প্রতি ১০০ হাজির জন্য ১টি বাসের উল্লেখ ছিল। তাই ১০০ জনকেই নেয়া হয়েছে। টাকা বেশি দিলে ৫০ জনের জন্য ১টি বাস দিতেও সমস্যা নেই। মিনা ও আরাফাতে বাংলাদেশি হাজির সংখ্যার চেয়ে ২০ হাজারেও বেশি সংখ্যক হাজির খাবার সরবরাহ করা হয়। সেক্ষেত্রে কোন মক্তবে খাবার পাওয়া যায়নি তা নাম-ঠিকানাসহ দেয়া হলে বিষয়গুলো খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব।

তিনি আরও বলেন, চুক্তি আনুযায়ী মিনা ও আরাফাতে ১৬ স্কয়ার ফুটের তাঁবুতে ১৯ জন থাকার কথা। সেখানে ১৬ জনকে রাখা হয়। হজযাত্রীরা চাইলে ভবিষ্যতে তাদের দুইটা করে ফোমের বেড দেয়া হবে।

পাহাড়ের ওপর তাঁবুতে বরাদ্দের বিষয়ে তিনি বলেন, পাহাড়ের তাঁবুতে হাজিদের সহজে যাতায়াতের জন্য সীমিত সংখ্যায় ট্রেনের টিকিট দেয়া হয়। তবে অদূর ভবিষ্যতে চলন্ত সি‌ঁড়ি চালু হবে।

মিনা ও আরাফাতে টয়লেট সমস্যার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে সমস্যার কথা স্বীকার করে ভবিষ্যতে আরও বেশি টয়লেট নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে বলে জানান।

মোয়াচ্ছাসার এ কর্মকর্তা বাংলাদেশকে বাড়ি ভাড়াসহ বিভিন্ন বিষয়ে দ্রুত আগাম বুকিং দেয়ার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, বহু এজেন্সি টাকা বাঁচাতে সবার শেষে এসব কাজ করেন। ফলে হাজিদের ভোগান্তি বাড়ে।

উল্লেখ্য, মিনা, আরাফাত ও মুজদালিফায় বেসরকারি হজ এজেন্সির হাজার হাজার হজযাত্রীকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। হজের মূল আনুষ্ঠানিকতার পাঁচদিন মিনা, আরাফাত ও মুজদালিফায় হাজি পরিবহনের জন্য যানবাহন, শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত তাঁবু ও খাবার সরবরাহের কথা থাকলেও হজযাত্র‌ীদের ৫০ শতাংশের ভাগ্যে ন্যূনতম সেবাটুকুও মেলেনি। পরিবহন না পেয়ে অসংখ্য হজযাত্রীকে মাইলের পর মাইল হে‌ঁটে গন্তব্যে যেতে হয়েছে।

যারা বাস পেয়েছেন তারা ভাগ্যবান তা-ও বলা যাবে না। কারণ আসন সংখ্যার চেয়ে তিনগুণ হাজিকে বাসে ঠাঁই দেয়ার ফলে বাসভ্রমণ নরকযাত্রায় রূপ নেয়।

অনেকেরই তাবুতে ঠাঁই হয়নি। কারও কারও ভাগ্যে তাঁবু জুটলেও এসি না থাকায় কাঠফাটা গরমে নিদারুণ কষ্ট করতে হয়। বহু এজেন্সির যাত্রীদের কপালে খাবার জোটেনি। খাবার চাইতে গিয়ে হজযাত্রীদের অনেকে শারীরিক নির্যাতনের স্বীকার হন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

তবে হজ এজেন্সিগুলোর দাবি, মোয়াল্লেমের চরম উদাসীনতা ও অবহেলার কারণে এমন বিপর্যয় ঘটে। আর যাত্রীরা বলছেন, এমন বিপদের সময় এজেন্সির গাইড কিংবা সংশ্লিষ্ট কাউকে তারা খু‌ঁজে পাননি।